পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে...
বৃহস্পতিবার, জুন ১৩, ২০২৪

আজ মহানায়কের জন্মদিন

ছয়দফা নিউজ ডেস্ক:
বাঙালির মননে ও আবেগে ওতপ্রোত জড়িয়ে রয়েছেন মহানায়ক উত্তমকুমার। একসময় বাংলা ছবির দুনিয়ায় রাজত্ব করেছেন। বলা ভালো, বাংলা ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির একচ্ছত্র অধিপতি ছিলেন উত্তমকুমার। তাই মৃত্যুর ৪৩ বছর পরও টলিউড ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির ইতিহাসে তাঁর উজ্জ্বল উপস্থিতি বর্তমান!

আজ উত্তমকুমারের জন্মদিন। নানা মাধ্যমে এই মহানায়ককে শ্রদ্ধা জানাচ্ছেন ভক্ত-অনুরাগীরা। ১৯২৬ সালের আজকের এদিনে কলকাতার ভবানীপুরে মধ্যবিত্ত পরিবারে জন্মেছিলেন এই কিংবদন্তি। তাঁর আসল নাম অরুণকুমার চট্টোপাধ্যায়। সিনেমায় এসে নাম পাল্টে রাখেন উত্তমকুমার। শিক্ষাজীবন শেষ না করেই কলকাতা পোর্টে কেরানির চাকরি শুরু করেন সংসারের হাল ধরতে। কিন্তু অভিনয়ের পোকাটা থেকেই গিয়েছিল মাথায়।

নায়ক থেকে মহানায়ক হয়ে ওঠার রাস্তায় কতটা বাধা পেরোতে হয়েছিল উত্তমকুমারকে, তার সম্যক ধারণা হয়তো অনেকেই করতে পারবেন না। প্রথম জীবনে কলকাতা পোর্ট ট্রাস্টে কেরানির চাকরি করতেন। কেননা তাঁকেই পুরো সংসার চালাতে হতো। চাকরির পাশাপাশি উত্তম ‘সুহৃদ সমাজ’ নাট্যগোষ্ঠীতে অভিনয়ও করতেন। এটি ছিল তাঁর পারিবারিক নাটকের গ্রুপ।

নীতীন বসুর ‘মায়াডোর’ নাটকে অভিনয়ের পর তাঁরই পরিচালনায় ১৯৪৮ সালে ‘দৃষ্টিদান’ ছবিতে প্রথম হাজির হন উত্তম। ক্যামেরার সামনে সেটাই তাঁর প্রথম কাজ। উল্লেখ্য, প্রথম ছবি দৃষ্টিদানের টাইটেল কার্ডে উত্তমকুমারের নামই ছিল না। দৃষ্টিদান থেকে সঞ্জীবনীÑ পরপর সাতটি ছবি ফ্লপ হওয়ার পর অভিনয়ই ছেড়ে দিতে চেয়েছিলেন উত্তম।

দৃষ্টিদানের নায়ক ছিলেন অসিতবরণ মুখোপাধ্যায়। তাঁর ছোটবেলার চরিত্রে ছিলেন উত্তম। দ্বিতীয় ছবি ‘কামনা’য় (১৯৪৯) প্রথম দেখা গেল তাঁর নাম উত্তম চ্যাটার্জি। হলে ছবিটি একেবারেই চলেনি। তাই পরের ছবি ‘মর্যাদা’য় নাম বদলে ফেললেন। হলেন ‘অরূপকুমার’। তাতেও খুব একটা লাভ হলো না। ছবি চলল না। পরের ছবিতে আবারও ফিরলেন উত্তম চ্যাটার্জি হয়ে। ‘সহযাত্রী’তে (১৯৫১) এসে হলেন উত্তমকুমার। এরপর আর নাম না বদলালেও সাফল্য আসতে সময় লেগেছিল আরও কিছুদিন।

ওই সময় ‘ফ্লপমাস্টার জেনারেল’ বলেই বিদ্রুপ করা হতো তাঁকে। কারণ তাঁর অভিনীত প্রথম সাতটি ছবি ব্যবসায়িকভাবে আলোর মুখ দেখেনি। চরম ব্যর্থতার সিলমোহর তখন নায়কের গায়ে। প্রতিদিন ব্যঙ্গবিদ্রুপের শিকার হতে হতে একপর্যায়ে হতাশ হয়ে পড়েছিলেন তিনি। অভিনয়ও ছেড়ে দিতে চেয়েছিলেন।

উত্তমকুমারকে সেই পরিস্থিতি থেকে উদ্ধার করেন পরিচালক নির্মল দে। ১৯৫২ সালে মুক্তি পায় নির্মল দে পরিচালিত ছবি ‘বসু পরিবার’। শ্রেষ্ঠাংশে উত্তম কুমার। মহানায়কের জীবনে এ ছবিটি এক উল্লেখযোগ্য ঘটনা। কারণ এ ছবির মাধ্যমেই শুরু হয় তাঁর নতুন অধ্যায়। তৈরি হয় পায়ের নিচে সাফল্যের প্রথম সিঁড়িটা।

এ ছবির সাফল্যের পর নির্মল দে তাঁর পরের দুটি ছবিতেও উত্তমকুমারকে নিয়েছিলেন। একটি ‘সাড়ে চুয়াত্তর’ (১৯৫৩); যেখানে উত্তম-সুচিত্রা জুটিকে প্রথম পাওয়া যায়। আর অন্যটি ‘চাঁপাডাঙ্গার বউ’ (১৯৫৪)। এতে গ্রাম্য যুবকের চরিত্রে জীবনের অন্যতম শ্রেষ্ঠ অভিনয় করেছেন উত্তম। এর পরই মূলত বাংলা চলচ্চিত্রে প্রকৃত অর্থেই শুরু হয় ‘উত্তম যুগ’।

পঞ্চাশ ও ষাটের দশকে ‘হারানো সুর’, ‘পথে হল দেরী’, ‘সপ্তপদী’, ‘চাওয়া পাওয়া’, ‘বিপাশা’, ‘জীবন তৃষ্ণা’, ‘সাগরিকা’র মতো কালজয়ী সব ছবির পরিচিত ও আকাঙ্ক্ষিত মুখ হয়ে ওঠেন উত্তম।

সমসাময়িক প্রায় সব নায়িকাই উত্তমের বিপরীতে কাজ করেছেন। তবে সুচিত্রা সেনের নামটি উত্তমের সঙ্গে মিশে আছে কালজয়ী জুটি হিসেবে। এ ছাড়া তনুজা, সুপ্রিয়া দেবী, সাবিত্রী চট্টোপাধ্যায়, মাধবী মুখোপাধ্যায়, লিলি চক্রবর্তী, শকুন্তলা বড়ুয়া ও শর্মিলা ঠাকুররা উত্তমকে পেয়েছেন নায়ক হিসেবে।

উত্তমকুমার শুধু যে বাংলা ছবিতে অভিনয় করেছেন তা কিন্তু নয়। বেশ কয়েকটি হিন্দি চলচ্চিত্রেও অভিনয় করেছিলেন। তাঁর অভিনীত হিন্দি চলচ্চিত্রের মধ্যে ‘ছোটিসি মুলাকাত’, ‘অমানুষ’, ‘আনন্দ আশ্রম’ প্রভৃতি উল্লেখযোগ্য।

এরপর সত্যজিৎ রায়ের পরিচালনায় ‘নায়ক’ ও ‘চিড়িয়াখানা’য় উত্তমকুমার নিজেকে তুলে ধরেছেন অনন্যভাবে। ১৯৮০ সালের ২৪ জুলাই চিরবিদায় নেওয়ার পরও বাংলার মানুষের মনে থেকে গেছেন মহানায়ক হয়েই। যত দিন বাংলা সিনেমা থাকবে, তাঁর নাম থাকবে অমর হয়ে।

এদিকে আইনি জট কাটিয়ে দীর্ঘ অপেক্ষার পর মুক্তি পেল ‘যেতে নাহি দিব’ সিনেমা। ছবিটি তৈরি হয়েছে মহানায়ক উত্তমকুমারকে নিয়ে। এই ডকু-ফিচারে মহানায়কের ভূমিকায় দেখা গেছে অভিনেতা সুজন মুখোপাধ্যায়কে। তাঁর পাশাপাশি এ ছবিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায় দেখা গেছে জনপ্রিয় টেলিতারকা স্বস্তিকা দত্ত ও সুদীপ সরকারকেও। ছবিটি পরিচালনা করেছেন প্রবীর রায়। চিত্রনাট্য লিখেছেন অশোক রায়। এই ডকু-সিরিজের স্পেশাল স্ক্রিনিং অনুষ্ঠিত হয়েছে কলকাতা নিউটাউনের নজরুলতীর্থে।

এই ডকু-সিরিজে উঠে এসেছে কিংবদন্তি অভিনেতার জীবনের বিভিন্ন ঘটনার কোলাজ। আসলে উত্তমকুমারের জীবনের শেষ আট বছর তাঁকে অত্যন্ত কাছ থেকে দেখার সুযোগ পেয়েছিলেন পরিচালক প্রবীর রায়। ফলে মহানায়কের জীবনের অজানা-অচেনা নানা দিক অনুরাগীদের সামনে তুলে ধরার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন।

আরো পড়ুন

মতামত দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সর্বশেষ সংবাদসমূহ

বিশেষ সংবাদ