পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে...
মঙ্গলবার, জুন ১৮, ২০২৪

চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির অঙ্ক কষছে বাংলাদেশ

ছয় দফা নিউজ ডেস্ক:
হেলমেট ছাড়া মোটরসাইকেল চালানোর একটা উগ্র বিলাসিতা রয়েছে পুনের। সিগন্যাল অমান্য করাটাও অনেকটা ডাল-ভাত এ শহরে! সচেতনতা বাড়ানোর জন্য অবশ্য দিল্লি পুলিশকে অনুসরণ করতেই পারে পুনে। কেননা, সেদিন ম্যাথুস ভাঙা হেলমেট নিয়ে টাইমড আউট হওয়ার পরই দিল্লি পুলিশের ফেসবুক পেজে সচেতনতামূলক পোস্ট– ‘আশা করি, এখন সবাই হেলমেটের গুরুত্ব বুঝতে পারবেন।’

পুনেতে অবশ্য সাকিব নেই, তবে সেদিন টাইমড আউটের ব্যাপারটি সাকিবের কানে যিনি দিয়েছিলেন, সেই নাজমুল হোসেন শান্ত কিন্তু রয়েছেন। ম্যাচের প্রতিটি বল, প্রতিটি মুহূর্ত তুখোড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করার প্রাথমিক পাঠ তিনি সাকিবের কাছ থেকে কিছুটা শিখে নিয়েছেন। তাঁর নেতৃত্বেই অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি হতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। এই শহরেই ভারতের বিপক্ষে টস করতে নেমে অধিনায়কত্বের অভিষেক হয়েছিল শান্তর। সেই শহরেই আবার নেতৃত্ব দিতে নামছেন এবং এই প্রথম অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ওয়ানডেতেও খেলতে নামছেন।

দিল্লি থেকে পুনেতে আসা শান্ত অনেকটাই বদলে গেছেন। আত্মবিশ্বাসী দেখাচ্ছে তাঁকে। গতকাল নেটে নামার আগে কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহের সঙ্গে অনেকক্ষণ কথা বলতে দেখা যায় তাঁকে। কোচের মোবাইল স্ক্রিনে বারবার চোখ রাখছিলেন তিনি। কী দেখছিলেন, দূর থেকে তা বোঝা অসম্ভব। তবে আন্দাজ করা যেতে পারে, বেঙ্গালুরুতে তখন চলা শ্রীলঙ্কা-নিউজিল্যান্ড ম্যাচের স্কোর হয়তো জেনে নিচ্ছিলেন। কেননা তাঁর সামনে এখন শুধুই চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির টিকিট পাওয়ার অঙ্ক মেলানোর পরীক্ষা।

অস্ট্রেলিয়ার সঙ্গে যদি বিশ্বকাপের শেষ ম্যাচটা হেরেও যায় বাংলাদেশ, তাহলেও ২০২৫ সালে পাকিস্তানে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি খেলার সুযোগ থাকবে। কিন্তু এর জন্য রান রেট ভালো থাকতে হবে। অসিদের সঙ্গে হারলেও অন্তত ভদ্রস্থ একটা স্কোর দাঁড় করাতেই হবে বাংলাদেশকে।

নেদারল্যান্ডসের শেষ ম্যাচ ভারতের বিপক্ষে, যদি সেখানে কোনো অঘটন না ঘটে, তাহলে বিশ্বকাপের ৯ এবং ১০ নম্বরে থাকতে পারে লঙ্কা ও ডাচরা। সাকিব ঢাকা রওনা হওয়ার আগে নাকি টিম মিটিংয়ে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির অঙ্কের কথা বলে গিয়েছেন। বিশ্বকাপের আগে এক সাক্ষাৎকারে সাকিব জানিয়েছিলেন, ২০২৫ সালের চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি খেলার পর ওয়ানডে ছাড়ার চিন্তা করবেন তিনি। এখন সেই আসরের যদি টিকিট না মেলে, তাহলে সাকিবের ওয়ানডে দলে ফেরাটাও অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়ে যেতে পারে। তাই সাকিবকে ফেরাতে অন্তত শান্তদের অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ভালো করতে হবে।

এদিন এমসিএ স্টেডিয়ামের এক কর্মী বাংলাদেশকে অনুশীলন করতে দেখে বলছিলেন, আগের ম্যাচে তারা যেভাবে বিরাট কোহলিকে সেঞ্চুরি করতে দিয়েছিলেন, এবার যেন ম্যাক্সওয়েলকে সেই সুযোগটা না দেওয়া হয়। আসলে এই মাঠে ভারতের বিপক্ষে একটা বাজে অভিজ্ঞতা রয়ে গেছে শান্ত-মিরাজদের। তাই এদিন মাঠে আসার পর ঢেকে রাখা পিচ খুলে প্রথম বাইশ গজ দর্শন করেছেন চন্ডিকা হাথুরুসিংহে ও শ্রীধরন শ্রীরাম।

তবে সেখানে যাই থাকুক না কেন ম্যাক্সওয়েলকে থামানোর কোনো চেষ্টাতেই বোধ হয় যাচ্ছেন না তারা। বরং কেউ কেউ খোঁজ নেওয়ার চেষ্টা করছেন ম্যাক্সওয়েল পরের ম্যাচটি খেলবেন কিনা। কেননা সেমিতে উঠে যাওয়া অস্ট্রেলিয়ার কাছে বাংলাদেশের এই ম্যাচটি শুধুই গা গরমের।

সেখানে ম্যাক্সওয়েলকে ফিট না করে ঝুঁকি তারা নেবেন কিনা, তা নিয়ে অনেকেরই সন্দেহ রয়েছে। তবে যেখানে কোনো ধরনের সন্দেহের অবকাশ নেই, তাহলো বিশ্বকাপের শেষ ম্যাচটিতেই অনেক অধ্যায়ের সমাপ্তি হয়ে যাবে। সাক্ষী থেকে যাবে মহারাষ্ট্রের এ পাহাড়ি শহর পুনে।

তথ্যসূত্রঃসমকাল

আরো পড়ুন

মতামত দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সর্বশেষ সংবাদসমূহ

বিশেষ সংবাদ