পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে...
রবিবার, জুন ২৩, ২০২৪

চীনের সঙ্গে খোলামেলা যোগাযোগে ফিরেছে যুক্তরাষ্ট্র

ছয় দফা নিউজ ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্র ও চীন ফের খোলামেলা যোগাযোগে ফিরে এসেছে বলে জানালেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাউডেন। শি জিনপিংয়ের সঙ্গে দুই দেশের সামরিক বাহিনীর মাঝে যোগাযোগের পাশাপাশি তাইওয়ান ও কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ব্যবহার বিষয়ে আলোচনা হয়েছে বলে জানান তিনি। খবর রয়টার্স।
গতকাল বুধবার (১৫ নভেম্বর) যুক্তরাষ্ট্রের সান ফ্রান্সিসকোয় বাইডেন ও শি প্রায় চার ঘন্টা ধরে বৈঠক করেন। এর আগে তাদের সর্বশেষ মুখোমুখি আলোচনা হয়েছিল গত বছরের নভেম্বরে।
বৈঠক শেষে বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্র-চীনা সম্পর্কে যে সব বিষয় চিড় ধরিয়েছে সেই সব বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। আরও ঘনিষ্ঠ যোগাযোগের ব্যাপারে দুই প্রেসিডেন্ট ঐকমত্যে পৌঁছেছেন।
বাইডেন ও শি সামরিক বাহিনী দুটির মধ্যে যোগাযোগ আবার স্থাপনে রাজি হয়েছেন। ২০২২ সালের আগস্টে হাউজ অব রিপ্রেজেন্টেটিভের তদানীন্তন স্পিকার ন্যান্সি পেলসির তাইওয়ান সফর ঘিরে সামরিক বাহিনী দুটির মধ্যে সম্পর্ক ছিন্ন হয়। বাইডেন বলেন, আমরা প্রত্যক্ষভাবে সরাসরি, খোলামেলা যোগাযোগে ফিরে এসেছি।
মার্কিন প্রেসিডেন্ট অনুরোধ করেন যে উভয় দেশ যেন সামরিক বাহিনী পর্যায়ের সংলাপকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দেয়। যুক্তরাষ্ট্রের একজন শীর্ষ কর্মকর্তা জানিয়েছেন, চীনের প্রতিরক্ষামন্ত্রীর নাম ঘোষণা করা হলে মার্কিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী লয়েড অস্টিন তার সঙ্গে দেখা করবেন।
বাইডেন ও শি এ ব্যাপারে সহমত হয়েছেন যে চীন আফিম জাতীয় ফেন্টানাইলের সঙ্গে সম্পর্কিত পণ্যের রফতানি বন্ধ করবে। বাইডেন বলেন, এর ফলে জীবন রক্ষা পাবে।
যুক্তরাষ্ট্রের একজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা সংবাদদাতাদের বলেন, যে সব কোম্পানির রাসায়নিকে সুনির্দিষ্টভাবে ফেন্টানাইলের লক্ষণ আছে, এ চুক্তি অনুযায়ী তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করবে চীন।
এই দুই নেতা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা ঝুঁকি নিয়ে বিশেষজ্ঞদের মধ্যে আলোচনা ব্যাপারে সম্মত হয়েছে।
বৈঠককে ‘সাফল্য’ বর্ণনা করে বাইডেন বলেন, কথা দিয়েই অনেক কিছু হয়। একে অপরের সঙ্গে খোলাখুলি আলোচনা করলে ভুল বোঝাবুঝির অবকাশ থাকে না।
স্বশাসিত তাইওয়ানকে বৈঠকে চীন নিজের অংশ বলে দাবি করে। এ বিষয়ে এক মার্কিন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, বাইডেনকে শি বলেন চীন চায় শান্তিপূর্ণভাবে তার দেশের সঙ্গে তাইওয়ানের পুনএকত্রিকরণ। তবে প্রয়োজনে শক্তি প্রয়োগের বিষয়টি তিনি এড়িয়ে যাননি।
অন্যদিকে বাইডেনকে উদ্ধৃত করে ওই কর্মকর্তা বলেন, যুক্তরাষ্ট্র ‘বিশ্বাস করে বর্তমান অবস্থায় এবং আমরা চীনাদের বলেছি, তাইওয়ানের নির্বাচনী প্রক্রিয়াকে সম্মান জানাতে’।
এদিকে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের জো বাইডেন জানান, শি জিনপিং সম্পর্কে দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তন করেননি। তাকে স্বৈরশাসক হিসেবেই দেখেন।
একক সংবাদ সম্মেলন শেষে বাইডেনকে জিজ্ঞাসা করা হয়, গত জুনে ‘শি একজন স্বৈরশাসক’ বলে মন্তব্য করেছিলেন। এখনও তা মনে করেন কিনা?
উত্তরে বাইডেন বলেন, তিনি এই অর্থে একজন স্বৈরশাসক যে এমন একটি দেশ পরিচালনা করেন যেটি কমিউনিস্ট দেশ। যা আমাদের চেয়ে সম্পূর্ণ আলাদা সরকারের ধরনের ওপর ভিত্তি করে শাসিত হয়।
তবে এ বিষয়ে এখনো বেইজিং কোনো মন্তব্য করেনি।

আরো পড়ুন

মতামত দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সর্বশেষ সংবাদসমূহ

বিশেষ সংবাদ