পরীক্ষামূলক সম্প্রচার চলছে...
বৃহস্পতিবার, জুন ১৩, ২০২৪

গাজায় বোমাবৃষ্টি, আরব নেতারা চান যুদ্ধবিরতি, রাষ্ট্রদূতকে তলব করেছে তুরস্ক

ছয় দফা নিউজ ডেস্ক:

গাজার উত্তরাঞ্চলে বোমাবৃষ্টি চালিয়ে যাচ্ছে ইসরাইল। হাসপাতালে আসছে লাশ আর লাশ। সঙ্গে রক্তাক্ত আহতদের নেয়া হচ্ছে। এতে হাসপাতালের ওপর ভয়াবহ চাপ সৃষ্টি হয়েছে। অবস্থা এমন হয়েছে যে, লাশ রাখার স্থান সংকুলান হচ্ছে না। গাজা উপত্যকার কেন্দ্রীয় এলাকায় দখলীকৃত আল মাঘাজি শরণার্থী ক্যাম্পে গণহত্যা চালিয়েছে ইসরাইল। এমন দাবি গাজা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আশরাফ আল-কুদরার। তিনি বলেছেন, সেখানে চালানো গণহত্যায় নিহত কমপক্ষে ৩০টি মৃতদেহ নেয়া হয়েছে আল-আকসা মার্টিরস হাসপাতালে। একটি শরণার্থী শিবিরের পানির ট্যাংকে বোমা হামলা করে তা উড়িয়ে দিয়েছে ইসরাইল। কয়েকদিন ধরে এতে হামলা চালালেও তা অক্ষত ছিল। কিন্তু শনিবারের হামলায় তা একেবারে ধ্বংস হয়ে গেছে।
ওদিকে ইসরাইলের নৃশংসতায় গাজায় নিহতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে কমপক্ষে ৯৪৮৮। জাতিসংঘ বলেছে, অভ্যন্তরীণভাবে প্রায় ১৫ লাখ মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়েছে। জাতিসংঘ পরিচালিত শরণার্থীদের আশ্রয়কেন্দ্রে আশ্রয় নিয়েছেন কমপক্ষে ৭ লাখ ১০ হাজার মানুষ। এসব কেন্দ্রে মানুষে এত গাদাগাদি যে, তাতে ভয়াবহ স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তা ঝুঁকি দেখা দিয়েছে। সঙ্গে মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ছে এসব মানুষ। একই সঙ্গে পানি ও পয়ঃনিষ্কাশন বিষয়ক অবকাঠামো ধ্বংস করে দেয়ায় জনস্বাস্থ্য মারাত্মক ঝুঁকিতে রয়েছে। এমন অবস্থায় আরব দেশগুলো অবিলম্বে গাজায় যুদ্ধবিরতি দাবি করছে। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্র বলছে তাতে যোদ্ধাগোষ্ঠী হামাস পুনর্গঠিত হওয়ার সুযোগ পাবে। এরই মধ্যে ইসরাইল সফর শেষে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন শনিবার আম্মানে সাক্ষাৎ করেছেন লেবানন, কাতার ও জর্ডানের নেতাদের সঙ্গে। তিনি এই যুদ্ধে মানবিক বিরতির পক্ষে কথা বলেছেন।

গাজায় তীব্র বোমা হামলা ও সাধারণ মানুষের অকাতরে প্রাণহানিতে বিশ্বজুড়ে ইসরাইলবিরোধী প্রতিবাদ বিক্ষোভ হচ্ছে। এতে বিশ্বজুড়ে ইসরাইলের কূটনৈতিক সম্পর্কে প্রভাব পড়ছে। ইসরাইলে নিযুক্ত নিজের রাষ্ট্রদূতকে শনিবার তলব করেছে তুরস্ক। বুধবার নিজের রাষ্ট্রদূতকে তলব করেছে জর্ডান। গাজায় নারী ও শিশুদের হত্যার সঙ্গে নেতানিয়াহু দায়ী বলে মন্তব্য করেছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তায়্যিপ এরদোগান।

এর আগের দিন শুক্রবার ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু তাকে জানিয়ে দিয়েছেন, হামাসের সঙ্গে কোনো অস্থায়ী যুদ্ধবিরতি হবে না, যতক্ষণ তারা ইসরাইলি সব জিম্মিকে মুক্তি না দেবে। গাজার উত্তরাঞ্চল থেকে সাধারণ মানুষকে সরে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছে ইসরাইল। তা সত্ত্বেও সেখানে সাড়ে তিন লাখ থেকে চার লাখ মানুষ অবস্থান করছেন বলে জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের একজন দূত। এ অবস্থায় গাজার দক্ষিণাঞ্চলে হামলা অব্যাহত রেখেছে ইসরাইলি সেনারা। জাতিসংঘ এ পরিস্থিতিতে বলেছে, গাজার কোনো জায়গাই এখন নিরাপদ নয়।

ওদিকে আরব নেতাদের সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে আজ রোববার তুরস্কে যাওয়ার কথা যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেনের। তিনি গাজা সমস্যা নিয়ে কূটনৈতিক দৌড়ঝাঁপ চালিয়ে যাচ্ছেন। যুদ্ধে কথিত মানবিক বিরতির জন্য তিনি আরব অঞ্চলের নেতাদের সঙ্গে কাজ করছেন। এ অবস্থায় শনিবার প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ইঙ্গিত দিয়েছেন, ব্লিঙ্কেনের এই তৎপরতায় কিছুটা অগ্রগতি হয়েছে। অবিলম্বে যুদ্ধবিরতির দাবি করছে আরব দেশগুলো। কিন্তু এই দাবি নিয়ে উদ্বিগ্ন যুক্তরাষ্ট্র। তারা মনে করছে, যুদ্ধবিরতি দেয়া হলে হামাস সঙ্গে সঙ্গে পুনর্গঠিত হবে। অন্যদিকে ইসরাইলি বাহিনী গাজা সিটির গভীর থেকে গভীরে অগ্রসর হচ্ছে।

তথ্যসূত্রঃমানবজমিন অনলাইন

আরো পড়ুন

মতামত দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

সর্বশেষ সংবাদসমূহ

বিশেষ সংবাদ